জ্যোতিষশাস্ত্রে মুক্তার গুরুত্ব, চার রাশির জন্য মুক্তা পরা শুভ, জেনে নিন এর উপকারিতা

শেয়ার করুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে :

জ্যোতিষশাস্ত্র অনুসারে, যাদের জন্মপত্রিকায় চন্দ্র দুর্বল তাদের অবশ্যই মুক্তা পরতে হবে। জ্যোতিষশাস্ত্রে, চন্দ্রকে মনের কারক গ্রহ হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

মুক্তা রত্নপাথরের উপকারিতার গুরুত্ব: রত্ন পাথরকে জ্যোতিষশাস্ত্রের একটি প্রধান শাখা হিসেবেও বিবেচনা করা হয়। রত্নপাথর অবশ্যই এক বা অন্য গ্রহের প্রতিনিধিত্ব করে। বৈদিক শাস্ত্রে মুক্তাকে অত্যন্ত শুভ ও প্রভাবশালী রত্ন হিসেবে বিবেচনা করা হয়। মুক্তা চাঁদের প্রতিনিধিত্ব করে। জ্যোতিষশাস্ত্র অনুসারে, যাদের জন্মপত্রিকায় চন্দ্র দুর্বল তাদের অবশ্যই মুক্তা পরতে হবে। জ্যোতিষশাস্ত্রে, চন্দ্রকে মনের কারক গ্রহ হিসাবে বিবেচনা করা হয়। আজ আমরা আপনাকে রত্নবিদ্যায় মুক্তার গুরুত্ব, এর উপকারিতা এবং এটি পরার পদ্ধতি সম্পর্কে বলব।

সাগরে খোসার মাধ্যমে মুক্তা পাওয়া যায়। মুক্তা সাদা, চকচকে এবং আকৃতিতে গোলাকার। রত্নগুলোর মধ্যে মুক্তার বিশেষ গুরুত্ব রয়েছে। চাঁদের মত মুক্তার ভিতরও শীতলা শান্ত ও সুন্দর। মুক্তার প্রভাব সরাসরি ব্যক্তির মন ও শরীরে উপস্থিত রাসায়নিকের উপর পড়ে। দক্ষিণ সাগরের মুক্তা সেরা বলে মনে করা হয়।

কে মুক্তা পরতে পারে?
মণি জ্যোতিষশাস্ত্রে মুক্তার বিস্তারিত ব্যাখ্যা করা হয়েছে। জ্যোতিষ শাস্ত্র অনুসারে যাদের রাশি মেষ, কর্কট, বৃশ্চিক এবং মীন রাশির তারা অবশ্যই মুক্তা পরবেন। চন্দ্রের মহাদশায় থাকলে মুক্তা পরা খুবই শুভ। এ ছাড়া কোনো ব্যক্তির জন্মকুণ্ডলীর ষষ্ঠ, অষ্টম ও একাদশ ঘরে চন্দ্র অবস্থান করলে মুক্তা পরা শুভ। দুর্বল চাঁদকে শক্তিশালী করতে মুক্তোও পরা উচিত। কিন্তু চন্দ্র যদি কারো কুণ্ডলীতে দুর্বল ঘরে থাকে, তাহলে মুক্তা পরা উচিত নয়।

মুক্তা পরার উপকারিতা:
– মতি রত্নপাথর চাঁদের প্রতিনিধিত্ব করে। চন্দ্র মনের কারক গ্রহ। মনকে স্থিতিশীল, শান্ত করতে এবং নেতিবাচকতা দূর করতে মুক্তা অবশ্যই পরতে হবে।
-মুক্তা পরলে আত্মবিশ্বাস বাড়ে এবং জীবনে সুখ ও সমৃদ্ধি আসে।
-মুক্তা পরিধান করলে মা লক্ষ্মীর আশীর্বাদ ব্যক্তির উপর থাকে। কারণ মুক্তা মা লক্ষ্মীর অত্যন্ত প্রিয় অলঙ্কার। মুক্তা পরলে মানুষের জীবনে অর্থের অভাব হয় না।
-যারা দ্রুত রেগে যায়, ধৈর্যের অভাব হয়, তারা মুক্তা পরিয়ে রাগ শান্ত করতে পারে।
-মুক্তা পরলে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে থাকে। 

এই পদ্ধতিতে মুক্তা পরুন:
-মুক্তাকে চাঁদের মণি বলে মনে করা হয়। এমন পরিস্থিতিতে এই রত্নটির সর্বাধিক উপকার পেতে এটিকে একটি রুপোর আংটিতে রেখে কনিষ্ক আঙুলে পরিধান করুন।
-শূলপক্ষে সোমবারে মুক্তা পরিধান করুন। এছাড়াও, পূর্ণিমা তিথিতেও মুক্তা পরা যেতে পারে।
-মুক্তা পরার আগে তা কাঁচা দুধ ও গঙ্গাজলে রেখে শুদ্ধ করতে হবে। 
-পোখরাজ এবং প্রবালও মুক্তার সাথে পরা যেতে পারে। 

আরো পড়ুন


শেয়ার করুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে :

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top
Scroll to Top