অবাধ্য সন্তানকে বশে আনুন এই সহজ কাজের মাধ্যমে

শেয়ার করুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে :

সন্তান একজন বাবা-মায়ের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ সম্পদ। প্রতিটি বাবা-মা সব সময় তার সন্তানদের নিয়ে চিন্তা করে। সন্তান অবাধ্য হয়ে যাওয়া হলো বাবা-মায়ের সবথেকে বেশি চিন্তার মধ্যে একটি । একজন ভাল সন্তান যেমন বাবা মায়ের মুখ উজ্জ্বল করতে পারে আবার একজন অবাধ্য সন্তান বাবা-মাকে সমাজের সামনে অপদস্ত  করতে পারে। অনেক সময়  বাবা-মায়েদের মনে হয় যে তাদের সন্তান হঠাৎ করে কেমন জানি বদলে গেছে। এই বদলে যাওয়ার বিভিন্ন কারণ থাকতে পারে। এই কারণগুলো ঠিকভাবে খুঁজে বের করতে না পারলে সন্তান অনেক খারাপ পথে চলে যেতে পারে এবং বাবা-মা তার জন্য চূড়ান্তভাবে অপদস্থ হতে পারে।  কিন্তু সবচেয়ে বড় সমস্যা তখনই হয় যখন বাবা-মা তার সন্তানের এইরকম হওয়ার সঠিক কারণ খুঁজে না পায় । সন্তানের এরূপ হওয়ার কারণ ঠিকভাবে খুঁজে বের করতে না পারলে তা একসময় বাবা মার জন্য চরম বিপর্যয়ের কারণ হতে পারে। তাই সন্তান অবাধ্য হয়ে গেলে অথবা তার আচার-আচরণে পরিবর্তন হলে অবশ্যই বাবা-মাকে সতর্ক হতে হবে এবং তার এরূপ আচরণের কারণ যত শীঘ্রই সম্ভব বের করতে হবে।  তবে এ ক্ষেত্রে শাস্ত্র অনুযায়ী কিছু কাজ অবাধ্য সন্তানকে বশে আনার ক্ষেত্রে কিছুটা ভূমিকা পালন করতে পারে।  বাবা মা যদি  অবাধ্য সন্তানকে বশে আনতে চায় তাহলে এই কাজগুলো করে সন্তানকে তাদের বশে নিয়ে আসতে পারে। ।  যেকোনো বয়সের সন্তানের জন্য এই কাজটি করা যেতে পারে। তাই কাজটি  তা নিচে মনোযোগ সহকারে দেখুন এবং চেষ্টা করবেন কাজ গুলো সঠিক ভাবে পালন করা।  যদি সঠিক ভাবে পালন করতে পারেন তাহলে অবশ্যই ভাল ফলাফল পাবেন।  শাস্ত্র মতে প্রতিটি বাবা-মায়েরই উচিত এই কাজগুলো পালন করা যাতে সন্তান তাদের কথামতো চলে। চলুন নিচে দেখা যাক কাজটি কি। 

কাজটি কী? ( টোটকা )

 তুলসী পাতার নাম হয়তো আমরা অনেকেই শুনেছি।  হিন্দু ধর্মালম্বীদের জন্য তুলসী  পাতাকে একটি অত্যন্ত পবিত্র এবং শুভ বলে গণ্য করা হয়।   অন্যান্য ধর্মাবলম্বীরাও তুলসীপাতা কে বিভিন্ন রোগ নিরাময়ের জন্য অথবা বিশেষ কোন কাজে ব্যবহার করে থাকে।  তুলসী পাতা কে বিভিন্ন ধরনের কাজে ব্যবহার করা হয়।  কাজে তাড়াতাড়ি সফলতা পাওয়ার জন্য তুলসী পাতা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে তাই কাজে সফলতার জন্য তুলসী পাতা ব্যবহার করা হয়। এই কাজটি করতে প্রয়োজন তুলসীপাতা, বাতাসা এবং গঙ্গাজল। যেহেতু এই কাজের জন্য তুলসী পাতা ও গঙ্গা জল ব্যবহার করা হয় তাই হিন্দুধর্মাবলম্বী সহজে করতে পারবেন।  অন্যান্য ধর্মালম্বীরা কিভাবে এই কাজটি করবেন তার জন্য আলাদা একটি টোটকা দেওয়া হবে।  নিচে দেখে নিন কীভাবে এই কাজটি করতে হবে। 

কী করতে হবে—

প্রথমে একটা তুলসীপাতা ভাল করে গঙ্গাজলে ধুয়ে নিতে হবে এবং তার সঙ্গে একটা বাতাসা দিয়ে ভগবান গোপীনাথের নাম করে সন্তানকে খাইয়ে দিতে হবে এবং মনে মনে ভগবানের কাছে নিজের সন্তানের জন্য প্রার্থনা করতে হবে। এই কাজটি প্রতি দিন করতে পারলে ভাল হয়। যদি তা সম্ভব না হয়, সপ্তাহে চার দিন করলেও খুব দ্রুত এর শুভ ফল পাওয়া যাবে।

এ ছাড়া চেষ্টা করুন সকালে ঘুম থেকে উঠে সন্তানকে প্রতি দিন তুলসীগাছে জল দেওয়ানোর অভ্যাস করার।

আরো পড়ুন


শেয়ার করুন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে :

Leave a Comment

Your email address will not be published.

Scroll to Top